27th-blog

সহজে ব্রেকফাস্ট তৈরি

ব্রেকফাস্ট হওয়া উচিৎ পুষ্টিগুণে সম্পন্ন। কেননা সকালের নাস্তা আমাদের সারাদিন কাজ করার শক্তি যোগায়। আমাদের দেহ ও মনকে সুস্থ এবং প্রাণবন্ত রাখে। তাই সকালের নাস্তা কখনো বাদ দেয়া উচিৎ না। সাধারণত সকালের নাস্তা আমরা রুটি, পরোটা, ডিম, ভাজি এসব দিয়েই করে থাকি। একই রকম খাবার প্রতিদিন খেতে কারই বা ভালো লাগে? তাই সকালের নাস্তায় চাই ভিন্নতা। আসুন জেনে নেয়া যাক কিছু মজাদার ও ভিন্ন সকালের নাস্তা সম্পর্কে, যা আপনাকে একটি সুন্দর দিনের শুরু করতে সাহায্য করবে।

১। দৈ চিঁড়া ফ্রুটস

কর্মব্যস্ততার কারণে আমরা অনেকেই ব্রেকফাস্ট না করেই ঘর থেকে বেরিয়ে পরি। তাই ব্রেকফাস্ট তৈরি হওয়া উচিৎ সহজ ও ঝটপট। সেক্ষেত্রে চিঁড়া আপনাদের ব্রেকফাস্টে ভিন্নতা আনতে পারে। সকালের নাস্তায় দৈ-চিঁড়া আপনার পেটকে ঠাণ্ডা রাখবে। চিঁড়াকে কিছুক্ষণ পানিতে ভিজিয়ে রেখে নরম করে নিতে হবে। এরপর এর সাথে দৈ মিশ্রণ করে আপনার পছন্দমাফিক ফল যেমন- আম, কলা ইত্যাদি কেটে দিতে পারেন। এর সাথে আপনি ঘরে থাকা বাদাম বা ড্রাই ফ্রুটসও দিতে পারেন। সাথে এক চিমটি লবণ এবং অল্প পরিমাণ দুধ বা গুঁড়া দুধ মিশিয়ে সকালের মজাদার নাস্তা প্রস্তুত করে নিতে পারেন। এভাবেই স্বল্প সময়ে তৈরি করে নিতে পারেন মজাদার ব্রেকফাস্ট। 

২। প্যানকেক

সকালে রুটি তৈরি করার মতো সময় আমাদের অনেকের হাতেই থাকে না। অথবা প্রতিদিন রুটি খেতে ভালোও লাগছে না। সেক্ষেত্রে সকালের নাস্তায় ভিন্নতা আনতে আপনি ঘরেই প্যানকেক তৈরি করে খেতে পারেন। আটা বা ময়দার সাথে ডিম, দুধ ও চিনি মিশিয়ে, অল্প আঁচেই চুলোয় তৈরি করে নিতে পারেন প্যানকেক। এরপর মধু বা চকলেট সিরাপ বা nutella-র সাথে পরিবেশন করতে পারেন। শিশুরা সকালের নাস্তা নিয়ে অনেক ঝামেলা করে। যেকোনো খাবার সহজে খেতে চায় না। সেসকল শিশুদের জন্য এটি একটি মজাদার নাস্তা হতে পারে। ব্রেকফাস্টে ভিন্নতা আনতে আপনিও ঘরে তৈরি করে নিতে পারেন মজাদার প্যানকেক।

৩। ওটস ফ্রুটস

ওটস স্বাস্থ্যের জন্য খুবই ভালো। ওটস অনেকক্ষণ পেতে থাকে। ফলে ক্ষুধা কম লাগে। তাই যারা ওজন কমাতে এবং স্বাস্থ্যকর লাইফস্টাইল মেইন্টেইন করতে চায় তাদের জন্য ওটস অনেক উপকারী। ওটস দিয়ে আপনি খুব সহজেই মজাদার এবং স্বাস্থ্যসম্মত সকালের নাস্তা তৈরি করে নিতে পারেন।

দুধের সাথে ওটস মিশিয়ে আপনার পছন্দমতো ফ্রুটস এবং ড্রাই ফ্রুটস অ্যাড করে নিতে পারেন। এছাড়াও ওটস পানিতে কিছুক্ষণ ভিজিয়ে রেখে, দুধ বা পানি দিয়ে চুলায় জাল দিয়েও খেতে পারেন। এর সাথে কলা, আম, খেজুর কেটে মিশিয়ে খেতে পারেন। এভাবে খুব সহজেই আপনি নিজেকে এবং পরিবারকে একটি স্বাস্থ্যকর ব্রেকফাস্ট তৈরি করে দিতে পারেন। 

৪। পিঠা

শীতের সকালে গরম গরম পিঠা এনে দিতে পারে সকালের নাস্তায় ভিন্নতা। নারকেল-গুড় দিয়ে তৈরি ভাপা পিঠা আমাদের প্রায় সকলেরই প্রিয়। তাই শীতকালীন ব্রেকফাস্ট হিসেবে পিঠা আপনাদের ব্রেকফাস্টে এনে দিতে পারে স্বাদের ভিন্নতা।

৫। ফ্রুট জুস

ব্রেকফাস্টে অন্যান্য খাবারের সাথে রাখতে পারেন ফ্রুট জুস। বর্তমানে অনলাইনে বিভিন্ন ফ্রুট জুস কিনতে পাওয়া যায়। এছাড়াও আপমার ঘরে থাকা মৌসুমি ফল দিয়ে ঘরেই আপনার পছন্দের জুস বানিয়ে নিতে পারেন। যা আপনার দেহের পানিশূন্যতা রোধ করবে এবং দেহে পুষ্টিগুণ প্রদান করবে।

Leave A Comment

You must be logged in to post a comment