48th-Blog

মানসিক স্বাস্থ্য নিয়ে ভাববেন যে কারণে

শারীরিক সুস্থতা নিয়ে আমরা যতটা সচেতন, মানসিক সুস্থতা নিয়ে আমরা ঠিক ততটাই উদাসীন। আমাদের সমাজে অনেকেই আছেন, মানসিক যেকোনো সমস্যাকে পাগলের লক্ষণ হিসেবে ধারণা করে। তাই তারা  মানসিক অসুস্থতাকে আড়াল করে বাঁচতে চায়। ফলে মানসিক অসুস্থতার কারণে শারীরিক অসুস্থতার কবলে পড়তে হয়। কেননা মানসিকভাবে সুস্থ না থাকলে, শারীরিক ভাবেও সুস্থ থাকা যায় না। তাই আসুন জেনে নেয়ার চেষ্টা করি, কেন আমাদের মানসিক স্বাস্থ্য নিয়ে ভাবা উচিৎ।

১। সুন্দরভাবে বাঁচা 

মন ভালো না থাকলে কি কোন কাজে মন বসে? কোন কাজ ভাল করে সম্পন্ন করা যায়? তাই সুন্দরমতো বাঁচতে আমাদের মানসিক স্বাস্থ্যের প্রতি যত্নশীল হতে হবে। শরীর খারাপ করলে আমরা যেমন চিকিৎসকের কাছে যাই। তেমনি, মন খারাপ বা মানসিক অসুস্থতার জন্য বিশেষজ্ঞ রয়েছে। কাউন্সিলিং এর মাধ্যমেই আপনাকে সুস্থ রাখতে পারেন। আপনার সমস্যা নিয়ে কষ্ট করে বাঁচার চাইতে এর সমাধান নিয়ে সুন্দর করে বাঁচা ভাল নয় কি ?

২। ক্ষুধামন্দা থেকে রেহাই

মানসিক সমস্যার কারণে অনেকের মাঝেই ক্ষুধামন্দা পরিলক্ষিত হয়। বহুদিন মানসিক অসুস্থতায় ভুগার ফলে খাবারের রুচি চলে যায়। ধীরে ধীরে শরীর দুর্বল হয়ে, শারীরিক নানা অসুখ দেখা দেয়। দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা লোপ পেতে শুরু করে। তাই মানসিক যে কোন ধরণের অসুস্থতায় চিকিৎসকের পরামর্শ নেয়া খুবই জরুরী।

৩। আত্মহত্যার প্রবণতা থেকে রেহাই

প্রতিটি মানুষের সহনশীল ক্ষমতা ভিন্ন ভিন্ন। ডিপ্রেশনের ফলে অনেকের মাঝেই আত্মহত্যার প্রবণতা দেখা দেয়। তাই ডিপ্রেশনকে নিজের মধ্যে পালতে শুরু করবেন না। যে কোন কারণেই হোক না কেন, আপনি যদি বিষণ্ণতায় ভুগতে থাকেন, তবে যত দ্রুত সম্ভব কাউন্সিলিং করানো উচিৎ। এ বিষয়ে আপনি যত দ্রুত সচেতন হবেন, ততো দ্রুত আপনি সুস্থ হয়ে উঠতে পারবেন। আত্মহত্যার প্রবণতা থেকে রক্ষা পেতে আমাদের মানসিক স্বাস্থ্যের প্রতি আরও যত্নবান হতে হবে।

৪। ইতিবাচক ধারণা

অনেকেই আছেন সকল বিষয়ে নেতিবাচক ধারণা পোষণ করে। সকল কিছুকে নেগিটিভলি বিবেচনা করেন। এর ফলে সৃষ্টি হয় অশান্তি। নেতিবাচক চিন্তাধারা মানসিক অসুস্থতার ফলে হতে পারে। কাউন্সিলিং এর ফলে এ আচরণে পরিবর্তন আনা সম্ভব। 

৫। আত্মবিশ্বাসী হওয়া 

আমরা অনেক সময় অপরের সফলতা দেখে বিষণ্ণতায় ভুগতে থাকি। মনে মনে নিজের অসফলতাকে, নিজের ব্যর্থতা ভেবে চেষ্টা করাই বন্ধ করে দেই। ধীরে ধীরে নিজের প্রতি আত্মবিশ্বাস হারাতে শুরু করি। ফলে আত্মবিশ্বাসের অভাবে আমরা জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে হেরে যেতে থাকি। ফলে আমাদের ভেতরে জন্ম নিতে থাকে ডিপ্রেশন।

তাই আপনার মনে যদি এরকম কোন ভাবনার উদয় হতে থাকে, তবে আপনি মানসিক ডাক্তারের পরামর্শ নিতে পারেন। ফলে আপনি আপনার হারানো আত্মবিশ্বাস ফিরে পাবেন।

মানসিক স্বাস্থ্য নিয়ে আমাদের ভাবা উচিৎ। কেননা মানসিক স্বাস্থ্য কেবল শারীরিক ভাবে নয়, সামাজিক ভাবেও আমাদের পঙ্গু করে ফেলতে পারে। বর্তমানে মানসিক স্বাস্থ্যের চিকিৎসা রয়েছে আমাদের হাতের মুঠোয়। ঘরে বসেই আমরা কাউন্সিলিং নিতে পারি।

Leave A Comment

You must be logged in to post a comment