38-blog

কিটো ডায়েট আসলে কতটা উপকারী?

দ্রুত ওজন কমাতে বর্তমানে কিটো ডায়েটের প্রতি ঝুঁকে পরছে অনেকেই। তবে আমরা কি আসলে জানি, কিটো ডায়েট আসলে কোটা স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী? আসুন জানার চেষ্টা করি।

১। কিটো ডায়েটে সকল প্রকারের শর্করাজাতীয় খাবার ত্যাগ করে প্রচুর পরিমাণে চর্বিযুক্ত বা ফ্যাট জাতীয় খাবার খেতে হয়। যা আপনাকে দ্রুত ওজন কমাতে সাহায্য করলেও, দীর্ঘকালীন সময়ে আপনার কিডনি ও লিভারকে বিকল করে দিতে পারে।

২। কিটো ডায়েটে অতিরিক্ত মাখন এবং তেল দিয়ে প্রতিটা খাবার প্রস্তুত করতে হয়। যা আমাদের হৃদরোগের ঝুঁকি বাড়ায়।

৩। কিটো ডায়েট ডায়াবেটিসের রোগীদের জন্য বেশ উপযোগী বলা হলেও, হৃদরোগের ঝুঁকি ডায়াবেটিক রোগীদের এমনিতেই বেশি থেকে থাকে। তাই তাদের জন্য এটি এড়িয়ে চলাই ভাল।

৪।  কিটো ডায়েট লম্বা সময় ধরে মেনে চলা কষ্টকর। প্রতিদিন ঘি, মাখন, চিজ, বাদাম, তেল, চর্বি জাতীয় খাবার খাওয়া আমাদের অনেকের পক্ষেই সম্ভব হয়ে উঠে না। অন্যদিকে কিটো ডায়েট বেশ ব্যয়বহুল এবং সহজলভ্যও নয়। তাই এ ডায়েট শুরু করে অনেকেই মাঝ পথে ছেড়ে দেয়। যা স্বাস্থ্যের জন্য আরও ক্ষতিকর।

৫। কিটো ডায়েট দ্রুত ওজন কমাতে সাহায্য করলেও স্বাস্থ্য ঝুঁকির পাশাপাশি পরবর্তীতে ওজন বৃদ্ধির আশংকা রয়েছে।

৬। এ ডায়েটের ফলে অ্যাসিডোসিসের কারণে হাড়ে ফ্রেকচারের ঝুঁকি রয়েছে।

৭। এ ডায়েটের কারণে হাইপোগ্লাইসেমিক হতে পারে।

৮। অধিক চর্বি এবং প্রোটিনের জন্য অনেক সময় ডায়রিয়া হয়ে থাকে। আবার কোষ্ঠকাঠিন্যও দেখা যায়।

৯। অতিরিক্ত চর্বি এবং প্রোটিন ত্বকের উজ্জ্বলতা নষ্ট করে। ত্বকে ফুসকুড়ি উঠে।

১০। কিটো ডায়েটের ফলে দ্রুত ওজন কমার সাথে সাথে দ্রুত চুলও পড়ে যায়।

১১। এ ডায়েট আমাদের হজম শক্তিকে কমিয়ে দেয়।

১১। পিত্তথলিতে, কিডনিতে পাথর ও কিডনির অন্যান্য সমস্যা, প্যানক্রিয়াসের অসুস্থতা, থাইরয়েডের সমস্যা হয়ে থাকে।

Keto Diet স্বল্পকালীন সময়ের জন্য উপকারী হলেও, দীর্ঘকালীন সময়ের জন্য বেশ ক্ষতিকর।

Leave A Comment

You must be logged in to post a comment